আন্তর্জাতিক

যুবরাজ সালমান সাম্রাজ্যের পতন ঘটছে?

সালটা ১৯৭২। যুক্তরাষ্ট্রে তখন নির্বাচনের ডামাডোলে রাজনৈতিক ময়দান উত্তপ্ত উনুন। ভোটের মাঠে সুবিধা পেতে তখনকার রিপাবলিকান প্রেসিডেন্ট রিচার্ড নিক্সন বিরোধী ডেমোক্রেটিক পার্টির কার্যালয়ে আড়ি পাতেন তাদের রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড জানতে। ঘটনাটি আমরা কমবেশি অনেকেই জানি। ক্ষমতা সুসংহত করতে নিক্সনের নেওয়া এই অবৈধ কর্মই যে তাঁকে গদিছাড়া করবে, তা হয়তো নিক্সন নিজেও ভাবতে পারেননি। তা না হলে কেউ কি নিজের পায়ে নিজেই কুড়াল মারেন?

তবে আজকের লেখা যুক্তরাষ্ট্রের রাজনীতি কিংবা ওয়াটারগেট কেলেঙ্কারির বিষয়ে নয়, সম্প্রতি ঘটে যাওয়া নৃশংস একটি হত্যাকাণ্ড নিয়ে। সেটা হলো সৌদি আরবের সাংবাদিক জামাল খাসোগি হত্যাকাণ্ড। তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ান ওয়াশিংটন পোস্টে একটি নিবন্ধে এই হত্যাকাণ্ডকে ওয়াটারগেট কেলেঙ্কারি কিংবা নাইন–ইলেভেনের সন্ত্রাসী হামলার চেয়ে কোনো অংশে কম গুরুত্বপূর্ণ নয় বলে মন্তব্য করেছেন। এরদোয়ানের মন্তব্য অনেকে গ্রহণ করতে পারেন, আবার নাও পারেন, সেটা তাঁদের বিষয়। তবে এ কথা সবাইকে এক বাক্যে মেনে নিতেই হবে যে খাসোগিকে হত্যা স্মরণকালের সবচেয়ে জঘন্য হত্যাকাণ্ডের একটি। এটি মধ্যপ্রাচ্যের রাজনৈতিক পটপরিবর্তনে প্রভাব ফেলতে পারে।