বাংলাদেশ

নাসিরনগরে অধিকাংশ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কলাগাছ-বাঁশ-কাগজের তৈরি শহীদ মিনারে শিক্ষার্থীদের শ্রদ্ধা

ডেক্স রিপোর্টঃ ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগরে একুশে ফেব্রুয়ারি ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ও শহীদ দিবস উপলক্ষে উপজেলার অধিকাংশ বিদ্যালয়ে শহীদ মিনার না থাকায় বাশঁ, কলা গাছ ও কাগজ দিয়ে তৈরি শহীদ মিনারে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানায় শিক্ষার্থীরা। এনিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছে স্থানীয় সচেতন মহল।
উপজেলার চাতলপাড় ডিগ্রি কলেজে কোন শহীদ মিনার না থাকায় বাঁশ আর সাদা কাপড় দিয়ে তৈরি অস্থায়ী শহীদ মিনার বানিয়ে মাতৃভাষা দিবসে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানানো হয়।
গত ২৪ বছর আগে কলেজটি প্রতিষ্ঠা হলেও এখনও কলেজে শহীদ মিনার তৈরির  কোন  উদ্যোগ গ্রহন করেনি কলেজ কর্তৃপক্ষ।
চাতলপাড় ডিগ্রি কলেজের প্রভাষক মোঃ মনির হোসেন বলেন, ভাষা আন্দোলনের ৬৭ বছর পরও যদি ছোট ছোট শিক্ষার্থীরা শহীদ মিনারের বেদিতে শ্রদ্ধা জানাতে না পারে তাহলে তারা শহীদ মিনারের মর্মকথা জানবে কিভাবে? এই বিষয়টির দিকে শিক্ষামন্ত্রণালয়ের সুদৃষ্টি দেয়া জরুরী বলে মনে করেন এই শিক্ষক।
চাতলপাড় কলেজের অধ্যক্ষ মোঃ ওমর আলী বলেন, কলেজে আটশতাধিকের বেশি শিক্ষার্থী রয়েছে। প্রতিবছর বাশেঁর তৈরি একটি অস্থায়ী শহীদ মিনারে কলেজের শিক্ষার্থীরা ভাষা শহীদদের ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করে থাকে।
এ ছাড়াও উপজেলার অধিকাংশ প্রাথমিক ও মাধ্যমিক এবং মাদ্রাসায় শহীদ মিনার না থাকায় শিক্ষার্থীরা কলা গাছ, বাঁশ অথবা কাগজ দিয়ে তৈরি শহীদ মিনার বানিয়ে মাতৃভাষা দিবসে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানায়।
উপজেলা প্রাথমিক ও মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, উপজেলায় ১২৬টি সরকারি প্রাথমিক, একটি নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়,১৬টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, দুটি স্কুল এন্ড কলেজ ও দুইটি কলেজসহ ছয়টি আলিয়া মাদ্রাসা রয়েছে। এর মধ্যে শুধুমাত্র তিনটি কলেজ, ১০টি মাধ্যমিক ও ছয়টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শহীদ মিনার আছে। বাকি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কোনো শহীন মিনার নেই। এমনকি উপজেলার একমাত্র সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়েও শহীদ মিনার নেই।