বাংলাদেশ

সদর হাসপাতালে ইসিজি এখন ২৪ ঘন্টা

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধিঃ ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালের  জরুরী বিভাগে এখন ২৪ ঘন্টা ইসিজি করা হয়।এখন ৪০০ টাকায় ইসিজি হয়, মাত্র ৮০ টাকায়।

২৫০ শয্যাবিশিষ্ট ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা সদর হাসপাতালের কর্তৃপক্ষের ইচ্ছায়-এখন সদর  হাসপাতালের বহিঃবিভাগ, অন্তঃবিভাগ ও জরুরী বিভাগে ২৪ ঘন্টায় ইসিজি করা হয় । গত ২৮ শে জানুয়ারি ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা সদর হাসপাতালের জরুরী বিভাগে  ২৪ ঘন্টা ইসিজি সেবা কার্যক্রম চালু হয়েছিল।প্রায় ৬৩ দিনে জরুরী বিভাগে ৫০৪ টি ইসিজি করানো হয়। এখন জরুরী বিভাগে ২৪ ঘন্টা, অসহায় ও দরিদ্র রোগীরা ৪০০ টাকার ইসিজি মাত্র ৮০ টাকায়  করতে পারে।  

জরুরী বিভাগের নার্সিং ইনচার্জ- শিল্পী সুলতানা চৌধুরী সাংবাদিকদের জানান- জরুরী বিভাগের এসএসএন(সিনিয়র স্টাফ নার্স) স্টাফরা তিনটি ডিউটি রোস্টারেই  প্রতিদিন ২৫-৩০টি ইসিজি করে থাকে। তারা এর পাশপাশি একই সাথে রোগীর টিকেট দেওয়া, ভর্তি করানো, ব্লাড পেসার মাফা, পালাস্টার করানো,  সেলাই করা, ড্রেসিং করা ইত্যাদি কাজ গুলো করে থাকে। এ কারনে সদর হাসপাতালের অসুস্থ রোগীরা সঠিক সেবা পাচ্ছে বলে উনি দাবী করেন এবং তিনি আরোও  বলেন- সদর হাসপাতালের তত্ত্বাবধারক ডাঃ শওকত হোসেন এর এই দায়িত্বশীল কাজ গুলো বাস্তবায়ন করা আমাদের নৈতিক দায়িত্ব। 

বিজয়নগর এর সুমন মিয়া সাংবাদিকদের বলেন- গতবছর মার্চে আমার বাবা কুদ্দুস আলীকে সদর হাসপাতালে জরুরী বিভাগে নিয়ে আসলে, ডাক্তার মৃত ঘোষনা করেন, এবং উনি বলেন ইসিজি করার জন্য। তখন হাসপাতালে ২৪ ঘন্টা ইসিজি সেবা না থাকায় বাহির থেকে ৪০০ টাকা বিনিময়ে ইসিজি করাতে হয়েছিল। এখন শোনে খুবই আনন্দীত হয়েছি যে, সদর হাসপাতালে ২৪ ঘন্টা ইসিজি করা যায় আমারদের মত অসহায় ও দরিদ্র রোগীদের আর ৮০টাকার ইসিজি ৪০০ টাকা  দিয়ে করতে হবে না। 

সদর হাসপাতালে জরুরী বিভাগে ডাঃ সৈয়দ মোঃআরিফুল ইসলাম, ডাঃ শাখাওয়াত হোসেন, ডাঃ ফাইজুর রহমান ফয়েজ, ডাঃ সাইদুর রহমান, ডাঃ নাজমুল হক,  ডাঃ মোঃ মনির হোসেন, ডাঃ মাইনুল হক উৎপল, ডাঃ মির্জা মোঃ সাইফ, ডাঃ এ বি এম মূসা চৌধুরী ডিউটি করেন। তারা সাংবাদিকের জানান- জরুরী বিভাগে ইসিজির ব্যবস্থা করায় এখন যে কেউ ৮০ টাকায় ইসিজি করতে পারায়, আমরা এখন হৃদরোগের রোগীদের চিকিৎসা জরুরী বিভাগে দিতে পারছি। আমরা প্রতি ডিউটি  রোস্টারে ১৫-২০ টি ইসিজি দেয়, যা এখন ২৪ ঘন্টা সদরে করা হচ্ছে।   

সদর হাসপাতালের হৃদরোগ কনসালটেন্ট ডাঃ এম এ এহসান ও ডাঃ রাজিব আহসান সাংবাদিকদের জানান- জরুরী বিভাগে ২৪ ঘন্টা ইসিজির ব্যবস্থা করায় এখন গরীব  রোগীদের আমরা সঠিক চিকিৎসা দিতে পারছি, এবং তারা দুইজন সদর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক- ডাঃ শওকত হোসেন ও আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার ডাঃ রানা নুরুল সামস ও ডাঃ একরামুজামান টিপুকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানান ।    

সদর হাসপাতালের তত্ত্বাবধারক ডাঃ শওকত হোসেন সাংবাদিকদের বলেন- সদর হাসপাতালের বহিঃবিভাগ, অন্তঃবিভাগ ও জরুরী বিভাগে ২৪ ঘন্টায় ইসিজি করা হচ্ছে।ইতিমধ্যে জরুরী বিভাগের সিনিয়র নার্স স্টাফরা দুইমাসে প্রায় পাচঁ শতাধিক এর বেশী ইসিজি করেছে। তিনি একটি সুখবর জানান যে- আর কিছুদিনের মধ্যেই জরুরী বিভাগে  ও অন্তঃবিভাগে ২৪ ঘন্টা ডায়াবেটিক পরিক্ষা করানো মেশিন দেওয়া হবে, তখন মাত্র ৬০ টাকায় ডায়াবেটিক পরিক্ষা করাতে পারবে, তাছাড়া সদর হাসপাতালে বিনামূল্যে  মহিলাদের জরায়ু টিকা, হেপাটাইটিস বি বা জন্ডিস এর টিকার ব্যবস্থা গ্রহন করা হচ্ছে। তিনি সাংবাদিকদের সহযোগীতা চেয়েছেন এবং তিনি সাংবাদিক ভাইদের উদ্দেশ্য  করে বলেন- আপনারা যদি সদরের ইতিবাচক ভুলগুলো না দেখিয়ে নেতিবাচক দিক গুলো জনসাধারণ এর কাছে তুলে ধরেন তাহলে সদর হাসপাতালের সেবার মান আরো ভাল হবে।