বাংলাদেশ

ইভটিজিংয়ের ঘটনাকে নিয়ে সরাইলে দুই গ্রামবাসীর মধ্যে সংঘর্ষে ৭জন পুলিশ আহত- ২৫

ইভটিজিংয়ের ঘটনাকে কেন্দ্র করে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলে দুই গ্রামবাসীর মধ্যে সংঘর্ষে ৭জন পুলিশ সদস্যসহ অন্তত ২৫ জন আহত হয়েছেন। বুধবার সকালে উপজেলার সৈয়দটুলার খন্দকার হাটি ও ফকিরপাড়ার মধ্যে এই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে সরাইল থানা পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ আনতে ৫৫রাউন্ড রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, বুধবার সকালে সরাইল নোয়াহাটি এলাকার দুই স্কুলের ছাত্রী প্রাইভেট থেকে ফেরার পথে ফকিরপাড়ার কয়কজন ছেলে তাদের ইভটিজিং করে। এই ঘটনা ওই শিক্ষার্থীরা তাদের পরিবারকে জানালে পরিবারের সদস্যরা প্রতিবাদ করলে দুই পক্ষের মধ্যে তর্কবিতর্ক হয়। পরে এরই জেরে উভয় পক্ষ দেশীয় অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। ঘটনার খবর পেয়ে সরাইল থানা পুলিশ থামাতে ৫৫রাউন্ড রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে। সংঘর্ষে ৭জন পুলিশ সদস্য সহ ২৫জন আহত হয়। আহতদের মধ্যে-সরাইল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) নূরুল হক, উপ-পরিদর্শক (এসআই) রফিকুল ইসলাম, কন্সটেবল নাজমুল, কন্সটেবল ইউসুফ, কন্সটেবল বেলাল, কন্সটেবল সুমন, কন্সটেবল রোকন, কন্সটেবল সাইফুল, আশিক, আব্দুল্লাহ, মোফাচ্ছেল, জুয়েল, ফয়সাল ও মোস্তফার নাম জানা গেছে। আহতদের ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতাল ও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। 

সরাইল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) নূরুল হক জানান, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ৫৫ রাউন্ড রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ আনে। এসময় ইটের আঘাতে ৭জন পুলিশ সদস্য আহত হয়। পরবর্তী যেকোন অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন করা আছে।