বাংলাদেশ

মেয়রের মদদে মুক্তিযোদ্ধার সম্পত্তি দখলের চেষ্টা!

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া উপজেলার প্রয়াত মুক্তিযোদ্ধা মাইনুল ইসলামকে ‘ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা’ বলে তার সম্পিত্তি দখলের চেষ্টার অভিযোগ ওঠেছে। দখল চেষ্টাকারীর পক্ষে আখাউড়া পৌরসভার মেয়র তাকজিল খলিফা কাজল মদদ দিচ্ছেন বলেও অভিযোগ করেছেন ওই মুক্তিযোদ্ধার পরিবারের লোকজন।
এ ঘটনায় শনিবার দুপুরে প্রতিবাদ সভা, মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল করেছেন মুক্তিযোদ্ধারা। আখাউড়া উপজেলা পরিষদ চত্বরে উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ও মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ডের উদ্যোগে এ কর্মসূচি পালিত হয়।
মুক্তিযোদ্ধা ইউনুছ মিয়ার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মানববন্ধন প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন আখাউড়া উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার রফিকুল ইসলাম ও জমসেদ শাহ, মুক্তিযোদ্ধা ফজলুর রহমান, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ডের নির্বাহী সভাপতি আবুল বাশার প্রমুখ।
প্রতিবাদ সমাবেশে উপজেলার একাধিক মুক্তিযোদ্ধা বলেন, মাইনুল ইসলাম আমাদের সাথে যুদ্ধ করেছেন। তিনি রণাঙ্গণের একজন বীর সেনানী। তাকে ‘ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা’ বলে কটাক্ষকারীদের বিরুদ্ধে মানহানির মামলা করা হবে।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ২০০৮ সালে মুক্তিযোদ্ধা মাইনুল ইসলাম ও তার ভাই ফখরুল ইসলামের মধ্যে পৈত্রিক সম্পত্তি বন্টন করা হয়। এরপর নিজ অংশের জায়গায় মাইনুল ইসলাম বাড়ি তৈরি করেন। তবে মাইনুলের মৃত্যুর পর সম্প্রতি তার ছোট ভাই ফখরুল গিয়ে মাইনুলের বাড়িতে তার জায়গা রয়েছে বলে দাবি করেন। মাইনুলের পরিবারের সদস্যরা এতে আপত্তি করেন। সম্প্রতি ফখরুল সংবাদ সম্মেলন করে মাইনুলকে ‘ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা’ বলে দাবি করেন।
প্রয়াত মাইনুল ইসলামের ছেলে ও উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ডের সহ-সভাপতি মাজহারুল ইসলাম রাজিব বলেন, আমার চাচার (ফখরুল ইসলাম) অনৈতিক দাবির পক্ষে আখাউড়া পৌরসভা মেয়র আমাদের ডুপ্লেক্স বাড়িটি ভাঙার নোটিশ দিয়েছেন। চাচার (ফখরুল ইসলাম) পক্ষ হয়ে মেয়র এমনটি করেছেন বলে অভিযোগ করেন তিনি।
অভিযোগের ব্যাপারে জানতে চাইলে আখাউড়া পৌরসভার মেয়র তাকজিল খলিফা কাজল জাগো নিউজকে বলেন, রাজিব অনুমোদনের বাইরে বাড়ির কাজ করেছে। ওই বর্ধিত অংশটুকু ভাঙার জন্য বলেছি। ওনার (মাইনুল ইসলাম) ভাইয়ের পক্ষ হয়ে আমি এটা করবো কেনো?